স্বামী ও স্ত্রী : টেক্সট ম্যাসেজ কনফার্মেশান

husband-wife

স্বামীর বাসাতে ফিরতে রাত হবে তাই স্ত্রীকে ফোনে টেক্সট ম্যাসেজ দিলো :
“ওগো, আমার বাসাতে ফিরতে রাত হবে। যদি পারো তাহলে আমার কিছু ময়লা কাপড় পড়ে রয়েছে সেগুলো ধুয়ে ফেলো এবং রাতে আমার পছন্দের খাবারটি তৈরি করতে পারো কি না একটু চেষ্টা করে দেখো।“

স্ত্রীর কাছ থেকে কোন রিপ্লাই না পেয়ে, স্বামী আরেকটি টেক্সট ম্যাসেজ দিলো :
“ও, একটি কথা তো বলতে ভুলেই গিয়েছিলাম, এই মাসে আমার বেতন বেড়েছে যা আমি পেতে যাচ্ছি মাসের শেষের দিকেই। ভাবছি এইবার তোমাকে একটি নতুন গাড়ি কিনেই দেবো।“

স্ত্রী সাথে সাথেই এইবার রিপ্লাই দিলো :
“O My God !! সত্যিই ?”

স্বামীর রিপ্লাই :
“না মানে আমি দেখছিলাম তুমি আমার প্রথম ম্যাসেজটি পেয়েছ কিনা।“

অনুবাদ : এলিন ২০১২
কার্টুন : গুগল

স্যান্ড আর্ট (Sand Arts) : অদ্ভুত এক শিল্প

‘Sand Art’ হচ্ছে এক প্রকারের শিল্প, যাতে বালি ব্যবহার করে করা হয় অনেক ধরনের শৈল্পিক কারুকাজ। যেমন : মানব শরীর, ভাস্কর্য, পশুপাখি, দালান-কোঠা, বাড়ি-ঘর, সমুদ্র সৈকত আরও অনেক কিছু। এই ধরনের শিল্পের ভিতরে শিশুদের জন্যও রয়েছে বিভিন্ন ধরনের কার্টুন চরিত্র ইত্যাদি। Sand-Arts-1

‘স্যান্ড আর্ট’ বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে। নেটিভ এমেরিকায় এক ধরনের ‘স্যান্ড আর্ট’ রয়েছে যা এক ধরনের পেইন্টিং হিসাবে পরিচিত। এই ধরনের ‘স্যান্ড আর্ট’ তৈরি হয় কিছুটা ভিন্নভাবে। যেমন : প্রথমে কাগজে পেনসিল দিয়ে আঁকা হয়, তারপর নির্দ্দষ্ট অংশ কাঁটা হয় এবং সেখানে রং মেখে রাখা বালি ঢেলে দেয়া হয়। ব্যবহার করা হয় গ্লু, রং, কাগজ ইত্যাদি। সবশেষে তা শুকাতে হয়।

এলিনের ভুবনের নতুন অতিথি : ফেইসবুক লাইক, ফেইসবুক কমেন্ট, পোস্ট শেয়ারিং, টুইটার ইত্যাদি

রিসেন্টলি আমার ব্লগে কমেন্ট সিস্টেমটিকে পরিবর্তিত করা হয়েছে। বেশিরভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর এখন  ফেইসবুক একাউন্ট রয়েছে এবং তাদের পক্ষে ফেইসবুক থেকে কমেন্ট করাটাই সব থেকে সহজ।

তাই আমি তাদের কথা বিবেচনা করে ব্লগের কমেন্ট সিস্টেম পরিবর্তন করেছি। এখন থেকে যে কোন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা আমার ব্লগে কমেন্ট/মন্তব্য করতে পারবে ফেইসবুকের একাউন্ট, ইয়াহু এবং হটমেইল ইত্যাদি একাউন্ট ব্যবহার করেই। এছাড়াও ব্লগের পূর্বের কমেন্ট সিস্টেম তো আছেই।

কিন্তু যদি এমন কেউ থেকে থাকে যাদের ফেইসবুকে, ইয়াহু, হটমেইল একাউন্ট নেই কিন্তু আমার ব্লগে কমেন্ট করতে চাইছেন, তারা নির্ধারিত নিয়মে শুধুমাত্র তাদের নাম ও ইমেইল ব্যবহার করে কমেন্ট করতে পারবেন।

আর যাদের ইমেইলও নেই, তারা দয়া করে আমার ‘বার্তা পাঠান‘ বিভাগ অথবা ‘অতিথি মহল‘ বিভাগ ব্যবহার করতে পারেন।

এখানে ‘অতিথি-মহল‘ বিভাগটিতে কমেন্ট করতে আপনাকে কোন প্রকার রেজিস্ট্রেশন করতে হবে না। শুধুমাত্র ‘নাম’ ও ‘ইমেইল’ ব্যবহার করেই মন্তব্য করতে পারবেন এবং সেই মন্তব্য এই ব্লগেই দেখা যাবে। কিন্তু ‘বার্তা পাঠান‘ বিভাগটি ব্যবহার করে ম্যাসেজ পাঠালে সেই বার্তা এই ব্লগে দেখা যাবে না, আমার ইমেইলে চলে যাবে।

আর নাম নেই এমন কোন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী মনে হয় এই পৃথিবীতে নাই। 🙂

এছাড়াও আমার ব্লগের যেকোনো পোস্টকে/পেইজকে সহজে  শেয়ার করতে পারবেন আপনার বন্ধুদের সাথে এবং ফেইসবুক লাইকও বসানো হয়েছে।

নিচের চিত্রটি দেখুন :

alinervubon new guest 20-Nov-2012

নতুন অতিথি : ফেইসবুক লাইক, ফেইসবুক কমেন্ট, শেয়ার

(যদিও কম/বেশি প্রায় সবাই জানে তারপরেও উপরের ছবিটিতে লাল রঙের বক্স দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে কোনটার কাজ কি।

১ নম্বর বক্সটিতে রয়েছে পুরো পোস্টটি পিডিএফ এ কনভার্ট করার জন্য বাটন নাম ‘Print PDF’, তারপর রয়েছে সহজেই পোস্টটি শেয়ার করার জন্য শেয়ার বাটনসমুহ। লাইক করার জন্য লাইক বাটন ইত্যাদি।

২ নম্বর বক্সটিতে রয়েছে সহজেই ফেইসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে কমেন্ট করার সিস্টেম। আপনি ইচ্ছে করলে ‘Connect Using’ বাটনটিতে ক্লিক করে অন্য কোন একাউন্টও ব্যবহার করতে পারবেন যেমন : Yahoo, Hotmail ইত্যাদি। যদি লগইন করা থাকে তাহলে Log Out করেও নিতে পারবেন এবং অন্য কোন একাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

৩ নম্বর বক্সটিতে রয়েছে পূর্বের সেই সিস্টেম নাম ও ইমেইল ব্যবহার করে কমেন্ট করা জন্য। যারা বাংলাতে টাইপ করতে পারে না তাদের জন্য ফোনেটিকের মত সহজ পদ্ধতি যুক্ত করা হয়েছে।)

 

তাহলে ভালো থাকুন এবং খুব সহজেই  ব্লগের লাইক ও কমেন্ট সিস্টেমকে ব্যবহার করুন।

– এলিন ২০১২

“হারিয়ে যেতে চাই”

আমি হারিয়ে যেতে চাই !

মেঘের শুভ্রতায়;

জ্যোৎস্নার মলিনতায়;

হারিয়ে যেতে চাই !

সাগরের নিবিড়তায়;

আকাশের বিশালতায়।

আমি হারিয়ে যেতে চাই !

হারিয়ে যেতে চাই-

হাসনাহেনার মাঝে,

উইন্ডোজ এর ‘Send To’ মেনু নিজের পছন্দ মত করে সাজান

উইন্ডোজ ব্যবহারকারী প্রায়ই সকলেই উইন্ডোজের এই ‘Send to’ মেনুর সাথে পরিচিত। যে কোন ফাইল বা ফোল্ডারে মাউসের ডান বোতাম ক্লিক করলেই আমরা এই মেনুটিকে দেখতে পাই। এই মেনুর দ্বারা আমরা যে কোন ফাইল/ফোল্ডারকে পেন-ড্রাইভে বা অন্য কোন স্থানে খুব সহজেই কপি করে নিতে পারি। এছাড়াও ডেস্কটপে শর্টকাট তৈরি করতে পারি, কমপ্রেস করে অন্য কোথাও সহজেই কপি করে রেখে দিতে পারি, সিডি/ডিভিডিতে রাইটও করতে পারি।

send-to-menu

ইচ্ছে করলেই আমরা এই মেনুটিকে নিজের পছন্দমত সাজিয়ে নিতে পারি। যেমন, মনে করুন আপনার ইচ্ছে আপনি বিভিন্ন ড্রাইভ থেকে আপনি ফাইল/ফোল্ডার একটি ফোল্ডারে কপি করে নিবেন পরে সেই ফোল্ডারটিকে সিডিতে রাইট করবেন বা ফোনে ভরে রাখবেন। অথবা, আপনি যখন আপনার ফোনে গান নিতে চান, তখন এই ‘Send To’ মেনু আপনাকে অনেক সাহায্য করবে।

নরমালি সেন্ড-টু মেনু ব্যবহার কে সরাসরি গানগুলি আপনার ফোনে নিলে সেই গানগুলি পছন্দমত ফোল্ডারে গিয়ে পড়বে না এবং ফোনের অন্যান্য ফাইল/ফোল্ডার এর সাথে ছড়িয়ে ছিটিয়ে যাবে।

তাই যদি আপনি প্রথমেই সকল ফাইল/ফোল্ডারকে একটি ফোল্ডারে সহজেই সাজিয়ে নিতে পারেন আপনার জন্য কাজটি করা ঝামেলাপূর্ণ মনে হবে না।

তাহলে আসুন যেনে নেই কি করে উইন্ডোজের ‘Send To’ মেনু নিজের পছন্দমত সাজাতে হয়।