আমার ডেভেলপ করা ডেস্কটপ-বেইসড জাভা প্রজেক্ট “MyWord Dictionary”

এখন আর কোন পোস্ট করাই হয় না। যা টুকটাক সবই ফেইসবুকে শেয়ার করে ফেলা হয়। এর জন্য আলাদা করে পোস্ট লিখে সেটা আবার ব্লগে পোস্ট করাটা কষ্টকর মনে হয়। আবার ব্লগটা খালিও রাখা যায় না। তাই ভাবছিলাম কিছু একটি পোস্ট করবো। এদিকে কয়েক বছর পর আবার জাভা প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ নিয়ে স্টাডি শুরু করেছি। আবার সেই বেসিকটাই শিখতে বসেছি। একেই বলে দূরত্ব। কোন কিছু থেকে বেশ কিছুদিন দুরে থাকলে তার সাথে সম্পর্কটা কমে যায়। জানিনা মানুষের সাথে মানুষের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই নিয়ম কার্যকর কিনা ! 🙂

যা হোক। কিছুদিন স্টাডি করার পর একটি প্রজেক্ট নিয়ে বসলাম। প্রজেক্ট করতে গিয়ে শিখলে সেটা মনে থাকে ও বিভিন্ন সমস্যা ধরা পরে আর শেখার পাশাপাশি একটি প্রজেক্টও করে ফেলা হয় যা ইচ্ছা হলেই পোর্টফলিওতে যুক্ত করা যায়।

splash screen of myword dictionary

MyWord Dictionary এর Splashscreen

Dropbox : https://www.dropbox.com/sh/0htrxh8ngij2pwl/AABYUv5hs67xANR4Ny017Cxga?dl=0

ডাটাবেজ রিলেটেড প্রজেক্ট করবো তাই ডাটাবেজ খুঁজছিলাম নেটে। নতুন করে ডাটা টাইপ করতে অনেক সময় লেগে যাবে। পেয়েও গেলাম ডিকশনারি এর জন্য

আমার ডেভেলপ করা এন্ড্রয়েড এ্যাপ : ‘E2B Dictionary’

অনেক দিন পর ব্লগ লিখতে বসলাম। বিভিন্ন কারণে ব্লগে আর আসাই হয় না। আজ ভাবলাম একটা পোস্ট করি। কিছুদিন ধরে JavaScript, AngularJS আর Ionic নিয়ে ঘাঁটছিলাম। প্রাকটিস করতে গিয়ে কিছু প্রজেক্ট ডেভেলপ করা হয়েছে তবে সেগুলো শেয়ার করার মত নয়। হঠাৎ নেটে (GitHub) একটি ডাটাবেজ ফাইল পেলাম যেখানে প্রায় ১৭০০০+ ইংরেজি থেকে বাংলা শব্দ রয়েছে। মানে ডিকশনারি ডাটাবেজ।

অমনি ভাবলাম এটি ব্যবহার করে কাজ প্রাকটিস করা যাক। প্রাকটিস করতে গিয়ে একটি প্রজেক্ট করলাম, E2B Dictionary। এখানে শুধু ইংরেজি থেকে সার্চ করে বাংলাতে অর্থ পাওয়া যাবে। বাংলা থেকে সার্চ করা যাবে না। ফাইলটি ইউনিকোড ছিল না। তাই ভাবলাম ওটা নিয়ে পরে ভাব যাবে।

নেটে অনেক সুন্দর সুন্দর ডিকশনারি রয়েছে। আমি নিজেই ব্যবহার করি ‘বাপ্পি ভাইয়ের’ ডিকশনারিটা। কারণ ওটাতে সব থেকে বেশি শব্দ রয়েছে। তবুও এটা আমি ডেভেলপ করেছি আমার প্রাকটিসের জন্য। নিজের ডেভেলপ করা কাজ আনন্দ আলাদা। তাই ব্লগে পোস্ট করতে বসলাম। লজিক নিয়ে মূলত ঘাটা হয়েছে বেশি (প্রায় ৭ রাত) কিন্তু ডিজাইন নিয়ে তেমন কিছুই করা হয় নাই।

এখানে আইকন আর স্প্ল্যাশস্ক্রিন যা এ্যাপটি চালু হবার সময় দেখা যাবে, সেটার জন্য একটু বেশি বড় হয়ে গেছে এ্যাপটির সাইজ। ছবির কোয়ালিটি ঠিক রেখে ছবির সাইজকে ছোট করার জন্য চেষ্টা করা হয় নাই। তাহলে এ্যাপটির সাইজ হল হয়তোবা ৩ মেগা। এখন হয়েছে প্রায় ৮+ মেগা।

E2B Dictionary1.0

Icon of E2B Dictionary1.0

আমার ডেভেলপ করা এন্ড্রয়েড এ্যাপ : ‘বাংলা জোকস’

আমার প্রায় কৌতুকের প্রয়োজন হয়। নিজের এবং অন্যকে খুশি রাখার জন্য। কিন্তু সব সময় সব কৌতুক মনে থাকেনা। যদি এমন হতো কৌতুকগুলো সব সময় আমার হাতের কাছে থাকে কেমন হয়! অমনি মনে পড়ে গেলো স্মার্ট-ফোনটির কথা। নেটে খুঁজেও তেমন ভালো এ্যাপ পেলাম না। একটি পেয়েছিলাম কিন্তু সেখানে কৌতুকের সংখ্যা খুবই কম। আমার প্রয়োজন সকল কৌতুক থাকে এমন এ্যাপ। হোক কিছু সাইজে বড় এবং স্লো। সমস্যা নেই। প্রয়োজনের সময় এসব মেনে নেয়া যায়।

অমনি ঠিক করলাম নিজেই একটি এ্যাপ ডেভেলপ করি। এতে প্রাকটিস হবে আর কৌতুকও পেয়ে যাবো। বিডি-জোকস এর ভালোলাগা প্রায় কমবেশি সকল কৌতুকই নিয়ে নিলাম এ্যাপটির জন্য। এবং অপর একটি সাইট ধরলাম প্রায় শেষও করলাম। এখন কয়েক’শ বাকি রয়েছে কৌতুক। এবং সব শেষে যে এ্যাপটি পছন্দ হয়েছিল তারও ভালো লাগা কমবেশি সব এ্যাপ নিয়ে নিলাম। নিয়ে নিলাম মানে ডাটা-এন্ট্রি করা শুরু করে দিলাম।

বাংলঅ জোকস

বাংলা জোকস

এ্যাপটি ডিজাইন, ডেভেলপিং শেষ করে ডাটা এন্ট্রি করা শুরু করে দিলাম। ডাটা এন্ট্রি করাই এখনও বাকি রয়েছে। টার্গেট ছিল ২০০০ জোকস। কিন্তু করেছি ১৮০০+ জোকস এর কালেকশান। পরে বাকিগুলো করে নেবো।

Windows 8 এ বিঙ সার্চ অন করা

আমরা পিসিতে যেকোন কিছু সার্চ করতে পারি। এক্ষেত্রে পিসি থেকে রেজাল্ট দেখাবে। পিসিতে না পেলে আর দেখাবে না। কিন্তু ইচ্ছে করলে যাদের ইন্টারনেট রয়েছে, তারা বিং সার্চ যুক্ত করে নিতে পারে। এমনিতে বাইডিফল্ট এটা অন থাকে তবুও যাদের অফ করা রয়েছে তাদের জন্য এই পোস্ট।

১. উইন্ডোজ ৮ এ মাউস পয়েন্টার স্ক্রিনের ডানপাশে নিয়ে কিছু সময় রেখে দিলেই চার্মবার চলে আসবে।

২. সেই বার থেকে Settings এ ক্লি করতে হবে।

৩. স্ক্রিনের নিচে Change PC Settings এ ক্লিক করতে হবে।

৪. বাম পাশ হতে Search and apps এ ক্লিক করতে হবে।

৫. ‘Use Bing to search online’ হতে ছোট বাটনটিতে ক্লিক করে On করে দিতে হবে।

এইবার পিসি চার্মবারের সার্চবক্স হতে কিছু সার্চ করা হলে পিসির সাথে সাথে অনলাইন হতেও সার্চ রেজাল্ট দেখাবে।

উইন্ডোজ ৮ এর কিছু টিপস, ট্রিক্স এবং সিক্রেট

উইন্ডোজ ৮ নিয়ে এই পোস্টটি কয়েকমাস আগেই করে রেখেছিলাম। কিন্তু ব্লগে দেয়া হয় নাই বিভিন্ন সমস্যার কারণে। ইতিমধ্যে নতুন ভার্সন বের হয়ে গেছে। তবুও ভাবলাম পোস্ট যেহেতু করে রেখেছি পাবলিশ করে ফেলি। যা হোক।

আমরা যারা উইন্ডোজ ব্যবহারকারী তারা উইন্ডোজ এর বিভিন্ন ভার্সনের ভিতরে পার্থক্য খুব কমই পেতাম। কিন্তু হঠাৎ করেই উইন্ডোজ তার এই বর্তমান ভার্সন ‘উইন্ডোজ ৮’ কে নিয়ে একদম ভিন্নভাবে আমাদের মাঝে হাজির হয়েছে। কেউ একে ভালো এবং গোছানো বলছে, কেউ বলছে সুন্দর আবার কেউ বা বলছে প্রচন্ড কঠিন ও ঝামেলাপূর্ন। কিন্তু কথা হচ্ছে কঠিন বা সহজ যাই হোক না কেন কমবেশি অনেকেই একে বরণ নিয়েছে। আপন করে নিয়েছে তাদের নিত্যদিনের কাজকর্মের মাঝে।

আজ এই উইন্ডোজ ৮ এর কিছু টিপস, ট্রিক্স নিয়ে আমার এই পোস্ট। যদিও উইন্ডোজ এর সর্বশেষ ভার্সন ৮.১ বের হয়েছে তবে টিপস গুলি উভয়ের জন্যই অনেকটা প্রযোজ্য হবে।

Windows 8 tips

Windows 8 tips