‘সায়ান’ – বাংলাগানের ভবিষ্যত উজ্জল তারকা এবং আমার প্রিয় একজন

আমি সহজে খুব একটা টেলিভিশন দেখিনা। আর যখন দেখি তখন শুধুই চ্যানেল পরিবর্তনের খেলায় মেতে থাকি। কিছুটু অধৈর্যভাবেই টিভির সামনে বসে থাকি। কিন্তু হঠাৎ করে গতকাল ‘বিটিভি’ ক্রস করে যাবার সময় ‘সায়ানকে’ দেখি। আর চ্যানেল পরিবর্তন করা হলো না। একদম ভিন্নধর্মী এক মানুষ। রহস্যময় ও খুবই আকর্ষনীয় লাগল আমার কাছে। বিশেষ করে তার লেখাগুলো খুবই ভালো লাগল। তিনি কবিতা ও গান লিখেন, সুর করেন, নিজেই সেটা গান এবং গীটার বাজিয়ে সুর তুলেন। দারুন প্রতিভা। আমি তখনই মনে মনে ঠিক করলাম তাকে নিয়ে কিছু একটা নতুন পোষ্ট দেবো। ‘সামহয়্যারের’ সহযোগিতায় পোষ্টটি সম্পূর্ণ করতে পেরে ভালো লাগছে।…

মাথার চুল একবারে ছোট করে ছাটা, চোখে স্বচ্ছ চশমা প্রথম দেখায় যে কারো মনে হবে কোন স্কুল বালক বুঝি। কিন্তু যখনই তার কন্ঠে ধ্বনিত হয় জীবনের নব জাগরনের গান তখনই ভুল ভাঙ্গে। সায়ান, বাংলা গানের জগতে এক নতুন বিস্ময়। গতরাতে বিটিভির এক অনুষ্ঠানে বেশ কিছু জীবনমুখী গান গেয়ে শোনান ‘সায়ান’। গানের সাথে সাথে তার চমৎকার গিটার বাজানো এবং একইসাথে মাউথ অর্গান বাজানো আপনাকে মুগ্ধ করবেই। কালকে যারা অনুষ্ঠানটি দেখেছেন তারা আমার সাথে একমত হবেন বাংলাগানের ভবিষ্যত উজ্জল তারকা সায়ান। নিজে গান লেখেন নিজেই সুর করেন, অপূর্ব তার গানের কথা। একমাত্র সুমন ও নচিকেতার গানের সাথে মিল খুজেঁ পাওয়া যায় সায়ানের গানের। চমৎকার কথাও বলেন সায়ান। আমি যতটুকু জানি শৈশব হতেই একটা সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে বেড়ে উঠেছেন সায়ান। তার এ সংগ্রামের কথা পাওয়া যায় তার গানে। ব্যাক্তিগত জীবনে শিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদের ভাইয়ের মেয়ে অর্থাৎ হালের অতি জনপ্রিয় গায়ক হাবিবের চাচাতো বোন সায়ান। কিন্তু পুরো অনুষ্ঠানে কখনো তাকে এই পরিচয়ে পরিচিত হতে দেখিনি। নিজের পরিচয়ে এগিয়ে যাক সায়ান। জয়তু সায়ান। …………. হাল ছেড়ো না বন্ধু তবে কন্ঠ ছাড়ো জোরে তোমার আমার দেখা হবে অন্য গানের ভোরে।

‘সায়ানের’ দুটি গান দেয়া হলো :

১. আমিই বাংলাদেশ – ডাউনলোড করুন সম্পূর্ণ গানটি ( এলিনের ভূবনের সংগ্রহ হইতে )

২. তাজ্জব বনে যাই – ডাউনলোড করুন (  সায়ানের নিজস্ব সাইট হইতে )

৩. দু’চেখ দিয়েই দ্যাখো – ডাউনলোড করুন ( সায়ানের নিজস্ব সাইট হইতে )

বাকি গানের লিংক সাইটে আর দিলাম না। শুধুমাত্র এলিনের ভূবনের সংগ্রহ হইতে গানটি সম্পূর্ণ রয়েছে আর বাকি দুটি গান অসম্পূর্ণ। যদি ভালো লাগে, তাহলে দয়া করে সিডিটি সংগ্রহ করুন।

সায়ানের গান” -এর সিডি সর্বত্র পাওয়াটা এখন পর্যন্ত বেশ দুরূহ,
তবে নিম্নলিখিত দোকানগুলোতে সরাসরি বিতরণ করা হয় গানপোকার পক্ষ থেকেঃ

  • music world, ধানমণ্ডি 27
  • নাজনিন, ধানমণ্ডি 5
  • anam rangs plaza, ধানমণ্ডি 6/A
  • সুরের মেলা, আজিজ মার্কেট
  • মেলোডি, eastern plaza
  • সুরের ভুবন, elephant road
  • ফাহিম মিউজিক, বনানী

এছাড়া, গানপোকার কার্যালয়ে (কাকরাইল) যে কোনো সময় পাওয়া যাবে এই সিডি।

সায়ানের নিজস্ব ওয়েবসাইট : http://www.shayanergaan.com/

সায়ানকে ইমেল করতে :

সায়ানের গানের কিছু কথা দেয়া হলো :


স্বপ্নের দৈন্য
“একটা কোনো বিশ্বাসী মন ধরবে আমার হাত
ঘর সাজাবে, গান শোনাবে, ভোর করে দেবে রাত
কোলে আমার ঘুমন্ত এক সুস্থ শিশুর মুখ
বন্ধু, আমার ওইটুকুতে ভরবে না যে বুক”

তাজ্জব বনে যাই
“আমার ঘরের ঘুলঘুলিতে চড়ুই পাখির বাসা
ধুলোবালি আর খড়কুটো দিয়ে গোছানো সে সংসার
আমি তাজ্জব বনে যাই, দেখি মানুষের ঘর নাই
দ্যাখো মানুষেরই ঘরে বাসা বেঁধে নিলো ছোট্ট এক চড়াই
আমি তাজ্জব বনে যাই, আজো মানুষ পেলো না ঠাঁই
দ্যাখো জিতে নিলো ঠিকই ছোট্ট চড়াই অধিকারের লড়াই ”

দু’চোখ দিয়েই দ্যাখো
“আজ শিক্ষিত লোকে গবেষণা করে
কার চেয়ে কে বড়
কাজী নজরুল, নাকি রবীন্দ্রনাথ
বলো কে বেশী বড়
এলো নজরুল, এলো রবীন্দ্রনাথ
বাঙালী তোমার জন্য
তবু গেলো না গেলো না, এখনো গেলো না
বাঙালী মনের দৈন্য”

ভয় পেওনা তুমি
“ভয় পেওনা তুমি, আমার জন্মভূমি

তোমার শরীরে ব্যথা, তোমার শরীরে ক্ষত
স্বপ্ন লুটায় ঘাসে, নিহত পাখির মতো
তবুও কেঁদোনা তুমি, আমার জন্মভূমি

কি দেবো তোমাকে আর, কি আছে দেবার মতো
কি করে সারাবো তোমার সবুজ শরীরের যত ক্ষত
আমার এ দুটো হাতে যতটুকু ব্যথা আঁটে
সে ব্যথা কুড়োতে আমার মর্ত্য-জীবন যেন কাটে
এটুকু বলতে পারি, এই যে তোমায় ছুঁয়ে
আহত তোমার শরীরের কাছে ক্লান্তিতে আছি শুয়ে

আমিও কি সুখে আছি, ডানা ভেঙে পড়ে আছি
বন্ধ আমারও ওড়া, আমিও তো ভাঙাচোরা
তবুও কেঁদোনা তুমি, আমার জন্মভূমি ”

এছাড়াও আরো বেশ কিছু সুন্দর সুন্দর লেখা রয়েছে তার।  লেখাগুলো দেখুন।

লেখা : এলিন ( এডমিন )
উৎস : ইন্টারনেট ২০০৮

পোস্টটি শেয়ার করুন :