Tag Archives: জাভা

আমার ডেভেলপ করা ডেস্কটপ-বেইসড জাভা প্রজেক্ট “MyWord Dictionary”

এখন আর কোন পোস্ট করাই হয় না। যা টুকটাক সবই ফেইসবুকে শেয়ার করে ফেলা হয়। এর জন্য আলাদা করে পোস্ট লিখে সেটা আবার ব্লগে পোস্ট করাটা কষ্টকর মনে হয়। আবার ব্লগটা খালিও রাখা যায় না। তাই ভাবছিলাম কিছু একটি পোস্ট করবো। এদিকে কয়েক বছর পর আবার জাভা প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ নিয়ে স্টাডি শুরু করেছি। আবার সেই বেসিকটাই শিখতে বসেছি। একেই বলে দূরত্ব। কোন কিছু থেকে বেশ কিছুদিন দুরে থাকলে তার সাথে সম্পর্কটা কমে যায়। জানিনা মানুষের সাথে মানুষের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই নিয়ম কার্যকর কিনা ! 🙂

যা হোক। কিছুদিন স্টাডি করার পর একটি প্রজেক্ট নিয়ে বসলাম। প্রজেক্ট করতে গিয়ে শিখলে সেটা মনে থাকে ও বিভিন্ন সমস্যা ধরা পরে আর শেখার পাশাপাশি একটি প্রজেক্টও করে ফেলা হয় যা ইচ্ছা হলেই পোর্টফলিওতে যুক্ত করা যায়।

splash screen of myword dictionary

MyWord Dictionary এর Splashscreen

Download : https://drive.google.com/open?id=0BwasIjIvyEvZRURaaEU4TTJia0E

ডাটাবেজ রিলেটেড প্রজেক্ট করবো তাই ডাটাবেজ খুঁজছিলাম নেটে। নতুন করে ডাটা টাইপ করতে অনেক সময় লেগে যাবে। পেয়েও গেলাম ডিকশনারি এর জন্য ডাটাবেজ কিছু। ইংরেজি থেকে বাংলা, বাংলা থেকে ইংরেজি ও ইংরেজি থেকে ইংরেজি। যা নিয়ে যদিও এমন কোন ডিকশনারি ডেস্কটপ সফটওয়্যার ডেভেলপ করা নাই আমি যা বুঝলাম। তাই ভাবলাম এগুলো ব্যবহার করেই প্রজেক্টটা করি। ইংরেজি থেকে ইংরেজি ডাটাবেজটা ওপেন-সোর্স যা গুটেনবার্গ এর সাইটে দেয়া আছে। তবে ডাটাবেজগুলো SQLite এ ছিল না। আমার কনভার্ট করে নিতে হয়েছিল।

এখানে আমি JDK8, NetBeans8.2 এবং SQLite এর দুইটি ডাটাবেজ ব্যবহার করেছি। জাভা Swing নিয়ে কাজ করেছি। যদিও JavaFX এ অনেক উন্নতমানের UI Design করা যায়। তবে এই মুহূর্তে JavaFX টা ধরবো না। যদিও হালকা করে একটু Touch দিয়েছিলাম। মানে ছোটখাটো স্যাম্পল প্রজেক্ট করেছিলাম। আর জাভা কে ডেস্কটপ সফটওয়্যার এর জন্য বাছাই করেছি কারণ আমার সাবজেক্ট ছিল এটা। করতেই হয়েছিল একসময়।

আমি ডেস্কটপ সফটওয়্যারের জন্য Java, ওয়েবের জন্য যেগুলো ব্যবহার করতেই হয় আর এন্ড্রয়েড এ্যাপ ডেভেলপিং এর জন্য iOnic টা ব্যবহার করি। এগুলো আমার ভালো লাগে।

কেউ অনেকদিন কথা বলতে না পারলে, তাকে যদি কথা বলতে বলা হয় অনেক সময় চুপ থাকার পর বকবক করতেই থাকে। আমিও ব্লগ লিখি না অনেক দিন হয়েছে। তাই বকবকটা একটু বেশি করে ফেললাম মনে হয়। 🙂

‘এলিনের ভুবন’ ব্লগ এখন এন্ড্রয়েড ফোনে …

অনেক দিন ধরে কোন পোস্ট করা হয় নি ব্যস্ততার বেড়াজালে আটকে ছিলাম এবং এখনও অনেকটা রয়েছি। আজ ভাবলাম একটি পোস্ট করি কারণ আমার এই ব্লগের জন্য কোন মতে একটি এন্ড্রয়েড এপ্লিকেশনডেভেলপ করেছি সেটা ব্লগে যুক্ত করে দেবো।

Splash Screen

Splash Screen

এ্যাপটা সাদামাটা। এই এ্যাপটির মুল উদ্দেশ্য ছিল এন্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্ট এর চর্চা করা। তাই অনেক কিছুতেই তেমন দৃষ্টি দেয়া হয়নি। শুধুমাত্র আমার ব্লগের সর্বশেষ আটটি পোস্টের আংশিক দেখাবে এবং সেই সাথে টুকটাক বাড়তি কিছু। যেমন : আমার সাথে কন্টাক্ট করা (ফোনের কল, এসএমএস বা ইমেইলে)। সেখানে ট্যাব করলেই সরাসরি সেই ফোন থেকেই কলটি আমার কাছে চলে আসবে নাম্বার টাইপ করতে হবে না। এসএমএস এবং ইমেইলও একই ভাবে। যদিও ইমেইল পার্টটিতে সমস্যা রয়েছে যা নিয়ে এখন বসতে ইচ্ছে করছে না।

এন্ড্রয়েড সমাচার : বেসিক আলোচনা – (শেষ পর্ব)

‘এন্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্ট’ : যে সকল বিষয়ে জ্ঞান থাকা প্রয়োজন

এন্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্ট হলও একটি পদ্ধতি যার দ্বারা কোন নতুন এপ্লিকেশন তৈরি করা হয় এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম এর জন্য। এন্ড্রয়েড এপ্লিকেশন সাধারণত ডেভেলপ করা হয় জাভা প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ’ এর দ্বারা এবং এন্ড্রয়েড সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট কিট বা Android SDK Tool ব্যবহার করে কিন্তু এখন অন্যান্য ডেভেলপিং টুলস ও পাওয়া যায়।

eclipse

Eclipse

এন্ড্রয়েড সমাচার : বেসিক আলোচনা – (পর্ব : ১)

কিছু কথা :

(প্রথমেই বলে নিচ্ছি, এই বার্তি কথাগুলো অযথাই মনে হবে। তারপরেও বেসিক আলোচনায় এই কথাগুলো না বললেই নয়। বেসিক পর্ব শেষ হলেই পরবর্তী আলোচনা হবে শুধুমাত্র এ্যাপ/গেম এর রিভিউ ও ডাউনলোড এবং এ্যাপ ডেভেলপমেন্ট নিয়ে।)

আমি কোন এন্ড্রয়েড পণ্ডিত নই। এই বিষয়ে আমি এক ছাত্র মাত্র। নেট ঘেঁটে যেটুকু জানতে পারছি আর সামনে পারবো সেই সব আমি এই বইতে শেয়ার করবার চেষ্টা করবো। অনেকেই আছে নেট ঠিক মত ঘাটে না বা ঘাটার পর যখন দেখে ইংরেজিতে অনেক অনেক লেখা তখন নিরাশ হয়ে যায়। তাদের জন্য আমি খুবই সহজে লেখার চেষ্টা করবো। কোন কিছুরই বিস্তারিততে না গিয়ে যা জানা এই মুহূর্তে প্রয়োজন একজন নতুন হিসাবে ঠিক সেইটুকুই দিতে চেষ্টা করবো।

আমি বরাবরই টেকনোলজির প্রতি আগ্রহী। নিত্যনতুন গ্যাজেট এর ব্যাপারে জানার ইচ্ছেটা প্রবল। আর সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়ার সুবাদে প্রোগ্রামিং এর প্রতিও ঝোঁকটা বেড়ে গেছে কিছুটা (যদিও ক্লাসের এ্যাসাইনমেন্ট ছাড়া প্রোগ্রামিং এর কিছুই পারি না :p )

আমি আবার আমার সেলফোন পরিবর্তনে এক ধাপ এগিয়ে। রিসেন্টলি আমি যে সেলফোনটি ব্যবহার করছি সেটা হল একটি স্মার্ট-ফোন, যার অপারেটিং সিস্টেম ‘এন্ড্রয়েড’।

আমি যে অনেক জানি এই ব্যাপারে, তা কিন্তু না। তবে, যেটুকু জানি, যখনই জানবো সবই এখানে শেয়ার করার চেষ্টা করবো।

আমার কিছু ছোটভাই/বন্ধু, যারা আমার হাতে এই ফোনটি দেখে হুট করে এন্ড্রয়েড ফোন কিনে পড়েছে মহা বিপাকে আর আমাকে প্রায়ই ফোন করে, ফেইসবুকে ম্যাসেজ দিচ্ছে এবং বাসাতেও আসছে এটা, ওটা সমস্যা নিয়ে। চেষ্টা করি সমাধান দেবার। আর না পারলে (ফান করে) বলি ফোনটা পাল্টে ফেলে সহজ কোন ফোন কিনে নেও। :p বলেই আমি নেটে ঘাটতে থাকি তার সমস্যাটি সমাধানের জন্য।

আমার সেই সকল সমস্যায় পড়া ভাই/বোনদের কথা মনে করেই ‘এন্ড্রয়েড’ নিয়ে আমার এই পোস্ট ! 🙂

এখানে এন্ড্রয়েড এর বেসিক নিয়ে যেমন আলোচনা করার চেষ্টা করবো, তেমনি এ্যাপস ও গেমস নিয়ে এবং এ্যাপস ডেভেলপিং নিয়েও আলোচনা করার চেষ্টা করবো। তবে সব কিছুর একটা ধারাবাহিকতা আছে। আমি সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতেই এই সকল ভূমিকা এবং ইতিহাস দিয়ে শুরু করছি।

তবে বিস্তারিততে যাবো না। অনেকেই আছে একদম নতুন তারা জানতে চায় ঠিকই কিন্তু বিস্তারিত আলোচনার জন্য তারা যা জানতে চায় তাই তাদের অজানা রয়ে যায়, সেদিকটাও লক্ষ রেখে এখানে লেখার চেষ্টা করছি।

এন্ড্রয়েড কি :

এন্ড্রয়েড হচ্ছে একটি লিনাক্স-বেইসড অপারেটিং সিস্টেম, যা ডিজাইন করা হয়েছে প্রধানত টাচ-স্ক্রিন ডিভাইসের জন্য যেমন স্মার্ট-ফোন এবং ট্যাবলেট কম্পিউটার। আর এই অপারেটিং সিস্টেমটি যারা ডেভেলপ করেছেন সেই ডেভেলপারদেরকে গুগল কিনে নেয় ২০০৫ সালে। তারপর থেকেই ‘এন্ড্রয়েডের’ মালিক এখন গুগল।