Category Archives: সাহিত্য-সম্ভার/সঙ্গীত

রোবট ড্যান্স : গাং-নাম স্টাইলের তালে নেচে প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করেছে এক রোবট

চীনের পূর্বাঞ্চল ‘হ্যাংঝোউতে’ একক নৃত্যের উপরে একটি প্রতিযোগিতা হয়েছিল। সেখানে বিচারকও ছিলেন, দর্শকরাও ছিলেন, যেমনটি থাকে অন্যান্য সাধারণ প্রতিযোগিতাগুলিতে।

কিন্তু এই প্রতিযোগিতাটি অন্যান্য প্রতিযোগিতা থেকে ভিন্ন ছিল। এখানেrobot gangnam style dance প্রতিযোগীরা কোন মানুষ ছিল না। এই প্রতিযোগিতা হয়েছিল কিছু সংখ্যক রোবটদের নিয়ে।

আর সেখানে সকল রোবট নৃত্যশিল্পীদেরকে হারিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করে একটি রোবট, যে নেচেছিল এখনকার দিনের সারা জাগানো গান ‘গাং-নাম স্টাইল’ এর সাথে। এই গানটি এই পর্যন্ত ইউটিউবে ৬০০ মিলিয়নের মত হিট পড়েছে।

এই ‘গাং-নাম স্টাইল’ গানটি গেয়েছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার একজন র‍্যাপার (যে র‍্যাপ গান গায়) Psy । তিনি এই গানটি রিলিজ করেন এই বছরের জুলাই মাসে। এতে তিনি একটি বিশেষ স্টাইলে নেচেছেন যাকে নাম দিয়েছেন ‘গাং-নাম স্টাইল’ বা ‘হর্স ড্যান্সিং’।

নিচে ভিডিওটি দেখুন (ভিডিও লিংকটি মাঝে মাঝে কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছে 🙁 )

ইউটিউব লিংক : http://youtu.be/lwcz0S_oqZM

উৎস : বিবিসি নিউজ ২০১২

‘Why This Kolaveri Di’ – আমার ভালোলাগা একটি ভিডিও গান

চমৎকার এক নতুন আইডিয়া নিয়ে গানটি করা হয়েছে। আমার কাছে খারাপ লাগেনি, তাই আমার ব্লগ এ শেয়ার করছি।

এই গানটি ‘তামিল’ সিনেমার গান। সিনেমাটির নাম ‘থ্রি’। ২০১২ সালে সিনেমাটি রিলিজ পাবার কথা আছে। গানটির ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর এবং কম্পোজ করেছিলেন ‘অনিরূধ রবি-চন্দার’।

কিন্তু গানটি অফিসিয়ালি রিলিজ পেয়েছে ২০১১ এর নভেম্বর মাসের ১৬ তারিখ।
ইতিমধ্যে গানটি ইউটিউবে সর্বাধিকবার সার্চের রেকর্ড করে ফেলেছে ইন্ডিয়াতে।

গানটিতে এমন কিছু ইংরেজি শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে যা তামিল ভকাবুলারিতে রয়েছে। যেমন : I, you, me, how, why, cow ।

গানটির লিরিক্স খুবই সহজ রাখা হয়েছে। এবং এখানে ব্যবহার করা হয়েছে Tanglish, অর্থাৎ Tamil এবং English এর সংমিশ্রণ।

এই গানটিতে সেই সব অধিকাংশ ছেলেদের কথা বলা হয়েছে যারা প্রেমে ব্যর্থ হয়েছে অথবা, সমস্যায় আছে তাদের গার্ল-ফ্রেন্ডদের নিয়ে।

অফিসিয়াল রিলিজের মাত্র ১ সপ্তাহের ভিতরেই ভিডিওটি ইউটিউবে ১.৩ মিলিয়ন এরও অধিক ভিউয়ার ভিজিট করেছে, ফেইসবুকে ১ মিলিয়নেরও বেশি শেয়ার করা হয়েছে, এবং ৩ নভেম্বর ২০১১ এ এই গানটি ইউটিউবে ১ কোটি হিট ছাড়িয়ে গেছে।


গানটার ভিডিও এর জন্য ডাউনলোড লিংক :

Female Voice

Male Voice

গানটির এমপিথ্রী ডাউনলোড লিংক :

MP3 Link

উন্মাদ ম্যাগাজিন অনলাইনে পড়তে চাইলে…

উন্মাদ ম্যাগাজিনের সাথে কম-বেশী অনেকেই পরিচিত। “প্রথম প্রথম আমি পড়তাম। এখন কিনে পড়তে ইচ্ছা করে না।” … এইরকম কথা অনেকেই বলে। যারা অনলাইনে বিনামূল্যে এই উন্মাদ ম্যাগাজিন পেতে চান তারা নিম্নের লিংক থেকে পেতে পারেন। অনেকে হয়তো বা এই লিংকটির সাথে পরিচিত থাকতে পারেন। তবে, যারা এখনও অপরিচিত, তাদের জন্য লিংকটি আমি আমার সাইটে দিয়ে দিলাম।

উন্মাদ ম্যাগাজিন পড়তে এখানে ক্লিক করুন।

বর্ণমালা – বাংলা সাহিত্য নিয়ে একটি ভাল সাইট

কিছুদিন আগে আমার নজরে একটি ভালো মানের বাংলা সাইট পড়লো। আমার খুবই ভালো লাগল এই সাইটটি। বাংলাতে করা সম্পূর্ণ সাইটি। এই সাইটটিতে রয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোটগল্পের সংগ্রহ, জীবনানন্দের কবিতা থেকে শুরু করে আরো অনেক লেখক/লেখিকাদের লেখা ছড়া, কবিতা, গল্প, উপন্যাস, ছোটগল্পের কালেকশান ইত্যাদি। এছাড়াও এই সাইট থেকে লেখক/লেখিকাদের সম্পর্কে জানতে পারবেন। আমার ভালো লাগলো তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। আশা করি আপনাদেরও ভালো লাগবে।

ভিজিট করুন :
http://www.barnamala.org/

সাইটটি থেকে নেয়া :

সুকুমার রায় এর ছড়া

খিচুড়ি

হাঁস ছিল, সজারু, (ব্যাকরণ মানি না),
হয়ে গেলে “হাঁসজারু” কেমনে তা জানি না।
বক কহে কচ্ছপে “বাহবা কি ফুর্তি!
অতি খাসা আমাদের বকচ্ছপ মূর্তি।”
টিয়ামুখো গিরগিটি মনে ভারি শঙ্কা
পোকা ছেড়ে শেষে কিগো খাবে কাঁচা লঙ্কা?
ছাগলের পেটে ছিল না জানি কি ফন্দি,
চাপিল বিছার ঘাড়ে, ধড়ে মুড়ো সন্ধি!
জিরাফের সাধ নাই মাঠে ঘাটে ঘুরিতে,
ফড়িঙের ঢং ধরি, সেও চায় উড়িতে।
গরু বলে, “আমারেও ধরিলো কি ও রোগে?
মোর পিছে লাগে কেন হতভাগা মোরগে?”
হাতিমির দশা দেখ , তিমি ভাবে জলে যাই,
হাতি বলে, “এই বেলা জঙ্গলে চল ভাই”।
সিংহের শিং নেই, এই তার কষ্ট
হরিণের সাথে মিলে শিং হল পষ্ট।

লেখা : এলিন (এডমিন) ২০০৮

পুরুষ মানুষ

আল্লাহ তায়ালা গাধাকে সৃষ্টি করার পর বলেন, “তুমি সারাদিন বোঝা বইবে, খাঁটবে। আর তোমার আয়ু হবে ৫০ বছর। তুমি কি রাজি?”
গাধা বলে, “আমি সারাদিন খাঁটতে রাজি কিন্তু এতো আয়ু আমি চাইনা, আয়ু কমিয়ে ২০ বছর করলে ভালো হয়।”
আল্লাহ গাধার আয়ু ৩০ বছর কমিয়ে ২০ বছর করলেন।

আল্লাহ তায়ালা এবার কুকুরকে সৃষ্টি করে বললেন, “তুমি সারাদিন মানুষের সাথে থাকবে আর মানুষের উচ্ছিষ্ট্যগুলো খাবে। তোমার আয়ু হবে ৩০ বছর। তুমি কি রাজি?”
কুকুর বলল, “এতো আয়ু আমি নিতে পারবো না, আমাকে আয়ু কমিয়ে ১৫ বছর করলে ভালো হয়।”
আল্লাহ কুকুরের আয়ু কমিয়ে দিলেন ১৫ বছর।

এবার আল্লাহ বানরকে সৃষ্টি করার পর বলেন, “তুমি সারাদিন গাছের এ’ডাল থেকে ও’ডালে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়াবে আর মানুষকে আনন্দ দেবে। তোমার আয়ু হবে ২০ বছর। তুমি কি রাজি?”
বানর বলল, “আমার আয়ু কমিয়ে ১০ বছর করে দিলে ভালো হয়।”
আল্লাহ তায়ালা বানরের আয়ু ১০ বছর কমিয়ে দিলেন।

এবার পালা পুরুষ মানুষের। আল্লাহ তায়ালা পুরুষ মানুষকে সৃষ্টি করে বলেন, “তুমিই হলো সৃষ্টির সেরা জীব। এবং তোমার আয়ু দেয়া হলো ২০ বছর। তুমি কি রাজি?”
পুরুষ মানুষ বলে, “হে সৃষ্টিকর্তা! আমার জন্য ২০ বছর খুব কম হয়ে যায়। আমাকে সেই সব আয়ু দেয়া হোক যা অন্য প্রাণীরা চায় নাই।”
আল্লাহ তায়ালা তার কথায় রাজি হলেন এবং তাকে তার ২০ বছরের সাথে গাধার কমিয়ে দেয়া ৩০ বছর, কুকুরের কমিয়ে দেয়া ১৫ বছর এবং বানেরর ১০ বছর দিয়ে দেয়া হলো। তাতে পুরুষ মানুষটির মোট আয়ু দাড়ালো ৭৫ বছর।

আর তারপর থেকেই পুরুষ মানুষ জন্মের প্রথম ২০ বছর কোনমতে ভালোভাবে কাটায়, পরের ৩০ বছর সংসারের বোঝা বয় এবং গাধার মত খাঁটে, তারপরের মাঝের ১৫ বছর এটা-সেটা খায়, অন্যের মর্জিতে চলে আর একদম শেষের ১০ বছর যখন বৃদ্ধ হয়ে যায়, তখন সে তার এছেলের বাড়ি, ও’মেয়ের বাড়ি ঘুড়ে ঘুড়ে কাঁটায় আর তার নাতি-নাতনিদের আনন্দ দেবার চেষ্টা করে।

(ইহা একটি গল্প। আমি টিভিতে শুনে আমার নিজের মত করে লিখেছি। ইহা সত্যি না মিথ্যা সেটা আমার জানা নাই।)

উৎস : টেলিভিশন ২০০৮
সম্পদনা : এলিন (এডমিন)