Category Archives: কম্পিউটার গেমস

অনেকদিন পর আবার ‘দাবা’ নিয়ে টুকিটাকি এবং অনলাইনে দাবা খেলার জন্য ভালো একটি সাইট

আগে মানে অনেক আগে প্রচুর ‘দাবা’ খেলা হতো। আমার বন্ধুদের সাথে, ক্লাশম্যাটদের সাথে, কাকা/মামাদের সাথে, আমার আম্মুর সাথে এমনকি একা একাও। বলা যায় আমি ছিলাম দাবার একটা ফ্যান। তখন ধৈর্যও ছিল অনেক। মোটামুটি খুব একটা খারাপও খেলতাম না এই দাবাটা। এখনও মনে পড়ে, সাইফুল, সোহাগ, রাজীব এর কথা এমনকি আমার শাহাদাত কাকার কথাও। আমার সাথে দাবা খেলত প্রতিদিন অন্তত ১ গেম হলেও। আমি আমার স্যার (যিনি বাসাতে পড়াতেন) তাঁর সাথেও দাবা খেলতাম পড়ার শেষে।

কিন্তু আজ আর এমন ধৈর্যশক্তিও নেই আর মানুষিক অবস্থাও নেই। তাই দাবার মত এত সুন্দর একটি খেলা থেকে দূরে সরে যাচ্ছি।

কি মনে করে যেন আবার দাবার কথা মনে পড়তেই টুকটাক এটাকে নিয়ে নাড়াচাড়া করা পড়ছে। প্রথমে ধরলাম উইন্ডোজ ৭ এর ‘Chess Titans’ । অনেক সুন্দর ত্রিমাত্রিক এই Chess টা। এ্যানিমেটেডও। সাউন্ড কোয়ালিটিও খারাপ না। লেভেল আছে ১০ টা। এই লেভেল হলো এক্সপার্ট লেভেল। ডিফল্ট ছিল ৮। আমি খেলে তো অবাক। যদিও আগের মত চিন্তা করে টাইম নিয়ে খেলতে পারি না এখন। তারপরেও অবাক করে দিয়ে প্রকৃতি আমাকে জিতিয়ে দিল। 😀 অনেকটা ‘মাই-গড’ টাইপের খুশি হয়েছিলাম। 🙂  ফেইসবুকে ফ্রেন্ডের সাথে সেই খুশি শেয়ারও করে ফেললাম। নিচে স্ক্রিনশট এ আমি ‘সাদা’ নিয়ে খেলেছিলাম।

৩০০+ পোর্টেবল এপ্লিক্যাশান এখন একত্রে ‘Liberkey’ তে

এটা আমার পোর্টেবল এপ্লিকেশন নিয়ে দ্বিতীয় পোস্ট। পূর্বের পোস্টে আমি পোর্টেবল এপ্লিকেশনের উপর আলোচনা করেছিলাম। সেখানে বলেছিলাম পোর্টেবল এপ্লিকেশন কি এবং এর উপকারিতার উপর। এছাড়াও কোথা থেকে এই সকল পোর্টেবল এপ্লিকেশন সংগ্রহ করা যাবে তাও আলোচনা করেছিলাম।

আজ আমি আলোচনা করবো ‘পোর্টেবল এপ্লিকেশন স্যুট’ নিয়ে। এই ব্যাপারে আমি কিছুটা আইডিয়া পেয়েছিলাম ‘টেকটিউসন’ থেকে। সেখানে বিভিন্ন এপ্লিকেশন স্যুট নিয়ে সংক্ষিপ্তাকারে একটি পোস্ট ছিল। আমি তা থেকে একটি স্যুট নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। স্যুটটা আমার খুবই পছন্দ হয়েছে। নাম ‘লিবারকি’। এর গ্রাফিক্সটাও চমৎকার। এনিম্যাট করে। ব্যবহার করতে দারুণ লাগে।

পোর্টেবল এপ্লিক্যাশানের গল্প…

প্রথমেই জেনে নেই ‘পোর্টেবল সফটওয়্যার কি ?’
পোর্টেবল সফটওয়্যার হচ্ছে এমন সকল সফটওয়্যার যা কোন প্রকার ইন্সটলেশন ছাড়াই পিসিতে চলবে। এই সকল সফটওয়্যার বহনযোগ্য, যা অনায়াসেই যে কোন স্টোরেজ ডিভাইস যেমন ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ, আইপড, মেমোরি কার্ড ইত্যাদিতে স্টোর করে নিয়ে গিয়ে যেকোনো পিসিতে ইন্সটলেশন ছাড়াই সহজে ব্যবহার করা যাবে।

ভিডিও গেম বিক্রি দিনে দিনে বেড়েই চলেছে…

call_of_duty_box_art
অর্থনৈতিক মন্দার কারণে মার্কিন নাগরিকেরা বড়দিনের কেনাকাটা খুব একটা না করলেও ভিডিও গেমের কেনাকাটা বেড়েই চলেছে। নভেম্বর মাসে মার্কিন নাগরিকেরা প্রায় ৩০০ কোটি ডলারের ভিডিও গেম কিনেছে। গত বছরের নভেম্বর মাসের তুলনায় এই নভেম্বর মাসে প্রায় ১০ শাতাংশ বেশী বিক্রি হয়েছে। ভালো গল্প নিয়ে গেম তৈরি করা এবং এইসব গেমের নির্মাণশৈলীর কারণে মানুষ বেশি বেশি ভিডিও গেম কিনছে।
nintendo_wii

এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন ‘প্রথম-আলো’ থেকে :
ক্লিক করুন বিস্তারিত

লেখা : এলিন (এডমিন) ২০০৮
উৎস : প্রথম আলো

আজ জার্মানি যাচ্ছেন বাংলাদেশি গেমাররা

বিশ্ব সাইবার গেমস ২০০৮-এর চূড়ান্ত পর্বে অংশ নিতে জার্মানি যাচ্ছেন বাংলাদেশের কম্পিউটার গেমস খেলোয়াড়েরা। আজ সোমবার বিকেলে তাঁরা মিউনিখের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন। চারটি গেমসের বিজয়ী আট গেমারের সঙ্গে মিউনিখ যাচ্ছেন বিশ্ব সাইবার গেমসের বাংলাদেশ কান্ট্রি ম্যানেজার ইরফান হুসেন। গেমাররা হলেন বাছাইপর্বে ‘ফিফা ২০০৮’ খেলে বিজয়ী আমেরিকান আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়-বাংলাদেশের (এআইইউবি) সোহান আরমান কায়েস, ‘নিড ফর স্পিড (এনএফএস) প্রো স্ট্রিট’ খেলে বিজয়ী আবদুর রহমান শাফি (বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ), ‘ওয়ার ক্রাফট ৩ ফ্রোজেন থর্ন’ বিজয়ী জিষ্ণু ব্রহ্মপুত্র হোসেন এবং বাছাইপর্বের আসরের একমাত্র দলগত গেমস ‘কাউন্টার স্ট্রাইক’ বিজয়ী কাজী নেওয়াজ ইবনে মাহতাব (আইইউবি) ও তাঁর দল। এই দলের গেমাররা হলেনঃ শরিফ নাজির (লালমাটিয়া মাদ্রাসা), ইমরান মিয়া (এলসিএলএস), তুষার খান (অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ও কলেজ), আরিফ আল রশিদ (ঢাকা ইমপিরিয়াল কলেজ) ও অমিত রিচার্ড (এনএসইউ)। ইরফান হুসেন জানালেন, ‘চূড়ান্ত পর্বে আমাদের গেমাররা বাংলাদেশপর্বের গেমসগুলোতেই অংশ নেবে।’

আগামী ৫ থেকে ৯ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এই প্রতিযোগিতা। মূল পর্ব শেষে বাংলাদেশ দল দেশে ফিরবে আগামী ১০ নভেম্বর।

উৎস : প্রথমআলো ২০০৮