কৌতুকসমগ্র-‌১

(১) “বাসনা আর প্রয়োজন”
একবার এক লোক এক হালি ডিম কিনতে বড় একটি নামকরা দোকানে গেলেন। দোকানটিতে ঢুঁকতেই রিসেপসনিস্ট এর সাথে দেখা। রিসেপসনিস্ট ছিলেন এক খুব সুন্দরী মেয়ে।
সুন্দরী রিসেপসনিস্ট লোকটিকে বললেন, “আপনার বাসনা বা প্রয়োজন কি আমাকে বলবেন?”
লোকটি তখন সাথে সাথে বললেন, “আমার বাসনা আপনাকে জড়িয়ে ধরে চুম্বন করা। আর প্রয়োজন হলো এক হালি ডিম।”

(২) “পাইলস-এর ডাক্তার”
এক হাসপাতালে একবার নিয়ম করেছিল, কোন ডাক্তারের জন্মদিন এলে তারা সবাই মিলে একটি ছবি দেবে। ছবিটিতে যেই ডাক্তারের জন্মদিন সেই ডাক্তার যে বিষয়ে অভিজ্ঞ সেই বিষয়ের ছবির ঠিক মাঝখানে তার ছবি দেয়া থাকবে। যেমন, চক্ষুবিশেষজ্ঞ-এর জন্মদিনে একটি চোখের ভিতরে সেই ডাক্তারের ছবি থাকবে, ডেন্টালের ডাক্তারতে দাঁতের ভিতরে তার ছবি এইভাবে। একবার এক চক্ষুবিশেষজ্ঞ-এর জন্মদিনে তাই করলো সবাই।
তখন সেই চক্ষুবিশেষজ্ঞটি একটু চিন্তা করে বললেন, “ভাজ্ঞিস আমি পাইলস-এর ডাক্তার ছিলাম না”।

(৩) মাতাল ও পুলিশ
মাতাল : আমাকে থানায় আনা হয়েছে কেন?
পুলিশ : মদ খাবার জন্য।
মাতাল : ঠিক আছে। তো খাওয়াটা এখনই শুরু হয়ে গেলে ভাল হয়না?

(৪) তোমার ছবির দিকে তাকাই যখন সকল সমস্যা দূরে চলে যায়…
স্ত্রী : তুমি সবসময় তোমার ব্যাগে আমার একটা ছবি রাখ, এর কারণ কি?
স্বামী : যখনই কোন সমস্যায় পড়ি তা যতই কঠিন হোকনা কেন আমি তোমার ছবির দিকে তাকাই আর আমার সব সমস্যা দুরে চলে যায়।
স্ত্রী : দেখেছো তোমার জীবনে আমার উপস্থিতি কত যাদুকরী আর শক্তিশালী?
স্বামী : হ্যাঁ, আমি তোমার ছবির দিকে তাকাই আর বলি, ” অন্য কোন সমস্যা কি এই সমস্যার থেকেও বড়?

(৫) ডাক্তার ও রোগী
ডাক্তার : আমি যেমন বলেছি তেমনটি করেছেন তো? রাতে জানালা খুলে শুয়েছেন কি?
রোগী : জ্বী
ডাক্তার : আপনার ঠান্ডা লাগার ধাত কি গেছে?
রোগী : হাঁ। গেছে আমার ঘরের টিভি, রেডিও আর টাকা পয়সা।

(৬) তুমি দেখা দিলে ওরাই পর্দা লাগাবে…
স্ত্রী : ওই সামনের বাড়ী থেকে একটা ছেলে উকি মারে। তুমি একটা পর্দা কিনে নিয়ে এসো তো।
স্বামী : পর্দা লাগাতে হবে না। পর্দা ওই ছেলেটাই লাগাবে। শুধু তুমি একবার ভাল করে দেখা দাও।

(৭) আগে ডাকাতি করতাম হুজুর…
গ্রামের মাতবর: দেখ তুমি কিন্তু এসেই শপথ নিয়েছ, সত্য ছাড়া মিথ্যা বলবেনা। অথচ এখন বলছ, এর আগে কখনো চুরি করনি।
আসামি: বিশ্বাস করেন হুজুর, সত্যি এর আগে কখনো চুরি করিনি।
গ্রামের মাতবর: তাহলে কী করতে?
আসামী: ডাকাতি করতাম হুজুর।

(৮) ঘোড়াটাই তো আমাকে পিঠে করে নিয়ে গেল হুজুর…
বিচারক: এতো বড় ঘোড়াটাকে চুরি করে নিয়ে গেলে কি করে ?
চোর: ঘোড়াটাই তো আমাকে পিঠে করে নিয়ে গেল হুজুর।

(৯) জী মানে, সাতটার সময় আমাকে অফিসে যেতে হবে কিনা…
মেয়ের পিতা : ইয়ারকি পেয়েছ। মেয়েটাকে সারারাত কোথায় কোথায় ঘুরিয়ে এখন ভোর ছয়টায় তাকে ফেরত দিতে এসেছো, এর মানে কি?
ভীরু প্রেমিক: জী মানে, সাতটার সময় আমাকে অফিসে যেতে হবে কিনা।

(১০) আমার হাতে সময় কম…
এক বাস যাত্রীকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে বাস কন্ডাক্টর লোকটিকে বলল : ‘আচ্ছা ভাই এতো সিট খালি থাকতে আপনি দাঁড়িয়ে যাচ্ছেন কেন?
লোকটি বলল : ‘আমার হাতে সময় কম তাই বসার সময় নেই’।

পোস্টটি শেয়ার করুন :